মোট দেখেছে : 72
প্রসারিত করো ছোট করা পরবর্তীতে পড়ুন ছাপা

একরাম হত্যার তদন্ত লোক দেখানো: রিজভী

মাদক বিরোধী অভিযানের নামে একদিকে নিরীহ ও সাধারণ মানুষ হত্যা চলছে। অন্যদিকে গডফাদারদের বিদেশে পালিয়ে যেতে সরকার সহায়তা করছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি'র সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। রোববার (৩ জুন) সকালে নয়াপল্টনে দলটির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ অভিযোগ করেন। তিনি বলেন, ‘একরাম হত্যার তদন্ত, লোক দেখানো ছাড়া কিছু নয়।’

মাদক বিরোধী অভিযানের নামে একদিকে নিরীহ ও সাধারণ মানুষ হত্যা চলছে। অন্যদিকে গডফাদারদের বিদেশে পালিয়ে যেতে সরকার সহায়তা করছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি'র সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। রোববার (৩ জুন) সকালে নয়াপল্টনে দলটির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ অভিযোগ করেন। তিনি বলেন, ‘একরাম হত্যার তদন্ত, লোক দেখানো ছাড়া কিছু নয়।’


বিএনপি'র সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘ঈদের আগেই দেশরত্ন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির জোর দাবি জানাচ্ছি। অন্যথায় বাংলাদেশের জনগণ তাঁর প্রতি জুলুমের জবাব দিতে প্রস্তুত আছে।’

একরাম প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘কাউন্সিলর একরাম হত্যার অডিও শুনে, তাঁর স্ত্রী ও মেয়েদের কান্না শুনে শুধু বাংলাদেশের মানুষের বিবেকে নয় বিশ্ব বিবেকেও নাড়িয়ে দিয়েছে। শুধু একরাম হত্যায় নয়, এখন পর্যন্ত মাদক বিরোধী অভিযানের নামে প্রায় ১৩০ জনের অধিককে বিচারবর্হিভূতভাবে হত্যা করা হয়েছে। গেলো চার মাসে ৪৫০ জনকে বিচারবহির্ভুতভাবে হত্যা করছে আইনশৃংখলা বাহিনী।’

তিনি আরো বলেন, ‘ড্রাগ চেইনের লিংক হিসেবে চুরি-ছিসকেমি করা কিছু ছিসকা মানুষসহ প্রমাণহীন আরো অজ্ঞাত মানুষের বিরুদ্ধে হত্যা অভিযান চালানো হচ্ছে। কিন্তু ড্রাগ চেইনের শীর্ষে বসে থাকা গডফাদাররা বসে আছে কি করে। এ প্রশ্ন তো সবার মুখে মুখে। বদিদের মতো এমপিরা প্রশাসনের সহায়তায় নিয়ন্ত্রণ করেন।’

রিজভী আরো বলেন, ‘বদিসহ ক্ষমতাসীনদের প্রভাবশালী ব্যক্তিরা কিভাবে এতগুলো গোয়েন্দা সংস্থার চোখ ফাঁকি দিয়ে দেশ ছেড়ে চলে গেলো সেটিও তো জাতির জানার অধিকার আছে। তারা বাংলাদেশে একটি এতিম জেনারেশন তৈরি করতে চায়। বেআইনি হত্যাকাণ্ডের মধ্যে দিয়ে সরকার তাদের টিকে থাকার সমাধান খোঁজে। তারা ভুলে গেছে অন্যায়ের প্রতিশোধ প্রকৃতি নিজেই নেয়। একটি বেআইনি হত্যা আরো অনেক হত্যার বিস্তৃতি ঘটায়।’